art03

আকাশের রং কী? নীল। কেন? সত্যি সত্যি কি আকাশের রং নীল?

আকাশের আসলে নির্দিষ্ট রং নেই। আসলে আকাশ বলতেই তো কিছু নাই, তবু রঙ একটা দেখা যায়! আসুন, সেটাকেই আকাশের রঙ ধরে নিয়ে কথা বলি। আকাশের রং কেমন হবে তা নির্ভর করে আপনি কিভাবে আকাশের দিকে তাকাচ্ছেন এবং সূর্য আকাশের কোথায় আছে তার উপর। আপনি যদি সূর্যের দিকে সোজাসুজি তাকান দেখবেন, সাদা রং দেখতে পাচ্ছেন। এর কারণ হলো সূর্যরশ্মি হলো রংধনুর সাতটি রঙের মিশ্রণ। এ কারণে তা দেখতে সাদা দেখায়। আইজ্যাক নিউটন অনেক আগেই প্রিজম দিয়ে তা প্রমাণ করে দেখিয়েছেন। প্রতিটি রঙেরই আলাদা আলাদা তরঙ্গ দৈর্ঘ্য আছে। যে রঙের তরঙ্গ দৈর্ঘ্য যত কম তা আকাশে বেশি বিক্ষিপ্ত হয়। বলেন তো মৌলিক রংগুলোর মধ্যে তরঙ্গ দৈর্ঘ্য সবচেয়ে কম কার?
.
হয় নাই। নীল না, বেগুনী। সবচেয়ে বেশি তরঙ্গ দৈর্ঘ্য লাল রঙের। তাহলে আমরা আকাশের রং বেগুনী দেখি না কেন? এর উত্তর পেতে চাইলে আপনাকে মানবদেহে চলে আসতে হবে। আমাদের চোখ সব রঙের প্রতি একরকম সংবেদনশীল নয়। মূলত লাল, সবুজ আর নীল এই তিনটি রং এর প্রতি বেশি সংবেদনশীল। নির্দিষ্ট কিছু রঙের প্রতি সংবেদনশীলতা সব প্রাণীর এক নয়।
.
১৮৫৯ সালে জন টেনডাল নামের একজন আইরিশ পদার্থবিদ আকাশের রং নীল হবার কারণ সর্বপ্রথম ব্যাখ্যা করতে সক্ষম হন। ‘আমাদের দৃশ্যমান আকাশে ভেসে বেড়ানো ক্ষুদ্রতম কণার মধ্যে দিয়ে সূর্যের আলো বিচ্ছুরিত হওয়ার সময় লাল অপেক্ষা নীল রং বেশী বিক্ষিপ্ত হয়।’ তাঁর এই ব্যাখ্যা ‘Tyndall Effect’ নামে পরিচিত। পরবর্তীতে লর্ড রেইলে নামে আরেকজন পদার্থবিদ এই বিষয়ে আরো বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেন। জন টেনডাল এবং লর্ড রেইলে দুজনই মনে করেছিলেন আকাশের রং নীল হওয়ার পিছনে ধূলিকণা ও জলীয়বাষ্পের বড়সড় অবদান আছে। তাঁদের এই ধারণা ভুল ছিলো। কারণ বায়ুমণ্ডলে ধূলিকণা বা জলীয়বাষ্পের পরিমাণ অতি নগণ্য (১% চেয়েও কম)। আকাশের রং নীল হওয়ার পিছনে সত্যিকারের কারো অবদান থাকলে তা হলো নাইট্রোজেন (৭৮%) এবং অক্সিজেন (২১%)। কিন্তু এই অবদানের কারণ কি? ১৯১১ সালে আলবার্ট আইনস্টাইন প্রমাণ করেন আলোর তড়িৎচুম্বকীয় প্রভাবের কারণে, গ্যাসীয় অণুর মধ্য দিয়ে আলো বিক্ষিপ্ত হয়।
.
সূর্যাস্তের সময় পরিষ্কার আকাশের রং আমাদের হলুদ দেখার কথা কিন্তু আমরা দেখি লাল। কারণ ঐ যে, আমাদের চোখ হলুদ রং পছন্দ করে না। বাতাসে দূষণ যত বেশী থাকবে, সূর্যাস্তের সময় আকাশ তত লাল দেখা যাবে। সমুদ্র সৈকতের সূর্যাস্তের রং কমলা দেখায় কারণ ঐখানের বাতাসে লবণের পরিমাণ বেশি।
.
আকাশের মতো যাদের চোখের রং নীল, তাঁর জন্যও কিন্তু দায়ী ঐ ‘Tyndall Effect’!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *